৯ অপরাধে জামাত নিষিদ্ধ ও ১০৯ সম্পত্তি বাজেয়াফতের সুপারিশ
এইদেশ ডেস্ক, মঙ্গলবার, মার্চ ২৫, ২০১৪


বিকাশ দত্ত ॥ একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় ক্রিমিনাল সংগঠন হিসেবে জামায়াতে ইসলামী যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে এখন বিচারের মুখোমুখি। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থা ধর্মভিত্তিক দল হিসেবে জামায়াতে ইসলামীর বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধসহ নয় ধরনের অপরাধের প্রমাণ পেয়েছে। তদন্ত সংস্থা এ সংগঠনটির বিরুদ্ধে চূড়ান্ত রিপোর্ট তৈরি করেছে। বৃহস্পতিবার সকালে চীফ প্রসিকিউটর গোলাম আরিফ টিপুর কাছে রিপোর্ট দাখিল করা হবে। দল হিসেবে নিষিদ্ধের পাশাপাশি জামায়াতের আদর্শ নিয়ে রাজনীতি নিষিদ্ধের সুপারিশ করা হয়েছে। একই সঙ্গে জামায়াত তাদের সহযোগী সংগঠক ইসলামী ছাত্র সংঘ, পাকিস্তানী সেনাবাহিনীকে সহাযোগিতা দিতে গঠিত শান্তি কমিটি, রাজাকার, আলবদর ও আলশামস, মুখপত্র দৈনিক সংগ্রাম নিষিদ্ধের আবেদন করা হয়েছে। সব সম্পদ বাজেয়াফতের আবেদন করা হয়েছে। প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ বলেন, ‘তদন্ত শেষ হয়েছে। এ সংগঠনের বিরুদ্ধে যেসব অপরাধের প্রমাণ পাওয়া গেছে, তাতে বিভিন্ন ধরনের সাজা হতে পারে। সংগঠনটি নিষিদ্ধ হতে পারে, তাদের সব সম্পত্তি বাজেয়াফত করা হতে পারে।’
মঙ্গলবার তদন্ত সংস্থার কর্মকর্তাবৃন্দ ধানমন্ডির সেফ হোমে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান। সাত মাস তদন্তের পর বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিরোধিতাকারী এই দলটির যুদ্ধাপরাধের অভিযোগের বিষয়ে এ তদন্ত প্রতিবেদন চূড়ান্ত করা হয়েছে।
সাক্ষী ৭০ জন ॥ জামায়াতের বিরুদ্ধে সাক্ষী হিসেবে রাখা হয়েছে সাহিত্যিক, ইতিহাসবিদ, সাংবাদিক, অর্থনীতিবিদ ও রাজনীতিবিদদের। এর মধ্যে ড. আবুল বারকাত, আনু মুহাম্মদ, ইমদাদুল হক মিলন, মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, মঞ্জুরুল আহসান খান, মেজবাহুর রহমান, মাওলানা ফরিদ উদ্দিনসহ ৭০ জন।

সম্পদ ১০৯টি ॥ জামায়াতের সম্পদ বাজেয়াফতের তালিকায় রয়েছে ইসলামী ব্যাংক, ইবনে সিনা, কেয়ারী ফুড, ইসলামী ব্যাংক চক্ষু হাসপাতাল, সান সিটি, দৈনিক সংগ্রাম, শতাব্দী প্রেস, আধুনিক প্রকাশনী প্রেস, দারুল ইসলাম ট্রাস্ট, সোনার বাংলা পত্রিকা, রাবেতা ইসলাম, দারুল ইসলাম ট্রাস্ট, ফুলকুড়ি, ফালাহ্ আম ট্রাস্টসহ ১০৯টি প্রতিষ্ঠান। তদন্ত কর্মকর্তারা মতামতে বলেছেন, তদন্তকালে প্রাপ্ত ও উদ্ঘাটিত সাক্ষ্যপ্রমাণ পর্যালোচনায় প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হয়, মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় সমগ্র বাংলাদেশে ২৫ মার্চ ১৯৭১ হতে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত অভিযুক্ত সংগঠন ‘জামায়াতে ইসলামী’ তার ছাত্র সংগঠন ইসলামী ছাত্র সংঘ, শান্তি কমিটি, রাজাকার, আলবদর ও আলশামস বাহিনী এবং জামায়াতে ইসলামীর মুখপত্র দৈনিক সংগ্রাম পত্রিকা আন্তর্জাতিক অপরাধ (ট্রাইব্যুনালস) আইন ১৯৭৩ আইনে ৩(২) ধারায় অপরাধ করেছে। এ সময় তারা নয় ধরনের অপরাধ করেছে, যা প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হয়েছে। (এ) মানবতাবিরোধী অপরাধ, (সি) গণহত্যা, (ডি) যুদ্ধাপরাধ, (ই) জেনেভা কনভেনশন ১৯৪৯ অনুযায়ী সশস্ত্র সংগ্রামের সময় মানবতাবিষয়ক আইনের ভঙ্গন, (এফ) আন্তর্জাতিক আইনের অন্যকোন অপরাধ, (জি) এমন অন্যকোন অপরাধের পদক্ষেপ গ্রহণ সেগুলোর সমর্থন আনা এবং ষড়যন্ত্র করা, (এইচ) এ রকম অপরাধের সহায়তা করা অথবা বোধ করতে ব্যর্থ হওয়া। এ ছাড়া ৪(১) ও ৪(২) উর্ধতন দায় এবং এ সকল অপরাধের সরাসরি অংশগ্রহণ করেছে। শুধুমাত্র সেকশন-৩ এর (বি) অংশ বাদ দেয়া হয়েছে। তাছাড়া সব ধরনের অপরাধের প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়া গেছে।

অপরাধের স্থান ॥ নয় ধরনের অপরাধ ছাড়াও অপরাধের সময়কাল ছিল একাত্তরের ২৫ মার্চ থেকে ১৬ ডিসেম্বর। অপরাধের স্থান- বাংলাদেশের সর্বত্র। অভিযুক্ত সংগঠন- জামায়াতে ইসলামী (কেন্দ্র থেকে সকল স্তরের নেতৃত্ব)। তদন্তকাল- ২০১৩ সালের ১৮ আগস্ট থেকে ২০১৪ সালের ২৫ মার্চ পর্যন্ত। তদন্তকালীন কর্মকর্তা- মতিউর রহমান। সর্বমোট ডকুমেন্ট- (ক) তদন্ত প্রতিবেদন ৩৭৩ পাতা, (খ) জব্দ দালিকা ও দালিলিক প্রমাণপত্র ৭ খ-ে মোট ২৩০৩ পাতা, (গ) আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের রায়, (ঘ) রিট পিটিশন, (ঙ) জামায়াতের বিরুদ্ধে পর্যবেক্ষণ, (চ) বিভিন্ন লেখকের বই-পুস্তক, গবেষণা পুস্তক, ম্যাগাজিন ইত্যাদি প্রায় দুই শতাধিক বই এবং (ছ) সর্বশেষ সাক্ষী।

নুরেমবার্গের পর এই প্রথম ॥ তদন্ত সংস্থার সমন্বয়ক এমএ হান্নান খান বলেছেন, বিজয়ের মাসে তদন্ত সংস্থা এমন একটি মামলার তদন্ত রিপোর্ট দিতে যাচ্ছে যার জন্য দেশবাসী উৎসুক হয়ে আছে। নুরেমবার্গ ও টোকিও ট্রাইব্যুনালের পর এই প্রথম আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল কোন সংগঠনের বিরুদ্ধে তদন্ত সম্পন্ন করেছে। সব সময় সংগঠন নিষিদ্ধ হয় সরকারের নির্বাহী আদেশে। এই দল জামায়াতে ইসলামী আগেও চার বার নিষিদ্ধ হয়েছিল। এবারই প্রথম জামায়াতের নিবন্ধন বাতিলের পক্ষে হাইকোর্ট একটি রায় প্রদান করেছে। রায়টি এখন আপীল বিভাগে বিচারাধীন রয়েছে। এটা নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সম্পর্কিত নয়। বালাদেশ স্বাধীনতার আগে ও পরে জামায়াতের ভূমিকা নিয়ে তদন্ত করা হয়েছে। আমরা প্রতিবেদনে জামায়াত নিষিদ্ধের আবেদন জানিয়েছি। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন দুই সমন্বয়ক এম এ হান্নান খান ও সানাউল হক, তদন্ত কর্মকর্তা মতিউর রহমান, মোঃ আব্দুর রাজ্জাক খান, মোঃ হেলাল উদ্দিন, প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ও ব্যারিস্টার তাপস কান্তি বল।

তদন্ত সংস্থার সমন্বয়ক সানাউল হক জানিয়েছেন, একটি সংগঠন হিসেবে দলীয় সিদ্ধান্ত নিয়ে আলবদর, আলশামস রাজাকার বাহিনী গড়া হয়েছিল। জামায়াতই একমাত্র সংগঠন যারা পাকিস্তানী সেনাবাহিনীকে সহায়তা করেছিল। জামায়াতের প্রাইভেট সংগঠন ছিল আলবদর আর আলশামস। এটা আরও গুরুতর অপরাধ। এই মুহূর্তে জামায়াত ও তার অঙ্গ সংগঠনের বিচার চাই। পিডিবি, মুসলিমলীগসহ অন্যান্যদের বিষয়ে প্রয়োজন হলে ভবিষ্যতে দেখা যাবে।

সহযোগী সংগঠন ॥ তদন্ত সংস্থা সূত্রে জানা গেছে, আইন অনুযায়ী মানবতাবিরোধী অপরাধে ব্যক্তির পর সংগঠনের বিচার তদন্তে এই প্রথম তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেবে বৃহস্পতিবার। বিশেষ করে মুক্তিযুদ্ধের সময় জামায়াতের মূলত চারটি বিষয় নিয়ে তদন্ত প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে। সেগুলোর মধ্যে রয়েছে জামায়াতের রাজনৈতিক কৌশল, ষড়যন্ত্র, পরিকল্পনা, শান্তির বিরুদ্ধে কৃত অপরাধ, যুদ্ধাপরাধ এবং গণহত্যা। এ ছাড়া প্রতিবেদনে বেশ কয়েকটি সংগঠনকে সামনে রেখে জামায়াতের অপরাধ তুলে ধরা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে জামায়াতের হাইকমান্ড (গোলাম আযম, মজলিসে শূরা), ছাত্র শাখা (ইসলামী ছাত্র সংঘ), জামায়াতের লিয়াঁজো কমিটি (শান্তি কমিটি), অপারেশন কমিটি (রাজাকার, আলবদর, আলশামস), প্রোপাগান্ডা (দৈনিক সংগ্রাম)।

এর আগে ট্রাইব্যুনালের বিভিন্ন রায়ে যুদ্ধাপরাধী দল হিসেবে জামায়াতের সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি উঠে আসে। সর্বশেষ গোলাম আযমের রায়ে জামায়াতকে একটি ‘ক্রিমিনাল সংগঠন’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়। হান্নান খান জানান, ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় জামায়াতে ইসলামী ও তাদের তখনকার সহযোগী সংগঠনগুলো যে সারাদেশে মানবতাবিরোধী অপরাধ ঘটিয়েছিল, তার প্রমাণ তারা তদন্তে পেয়েছেন। তদন্তের ভিত্তিতে গণহত্যা, যুদ্ধাপরাধ, জেনেভা কনভেনশন ও আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন, মানবতাবিরোধী অপরাধ সংঘটনের চেষ্টা ও ষড়যন্ত্র এবং এ সব অপরাধ ঠেকাতে ব্যর্থতাসহ নয় ধরনের অভিযোগ আনা হয়েছে এই প্রতিবেদনে। এতে সাক্ষী করা হয়েছে ৭০ জনকে।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, জামায়াতে ইসলামী, তাদের সহযোগী সংগঠন ইসলামী ছাত্র সংঘ, পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীকে সহযোগিতা দিতে গঠিত শান্তি কমিটি, রাজাকার, আলবদর ও আলশামস বাহিনী এবং জামায়াতের মুখপত্র দৈনিক সংগ্রাম আন্তর্জাতিক অপরাধ আইনের ৪ এর ১ ও ৪ এর ২ ধারা অনুযায়ী অপরাধ করেছে।

তিনবার নিষিদ্ধ হয় ॥ উল্লেখ্য, এর আগেও জামায়াতে ইসলামীকে তিনবার নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। সর্বপ্রথম ১৯৫৯ সালে জামায়াতে ইসলামী নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয। এর পর ১৯৬৪ সালে দ্বিতীয়বার ও ১৯৭২ সালে তৃতীয়বার। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু হত্যার পর জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় এলে পলিটিক্যাল পার্টিজ রেগুলেশনের (পিপিআর) আওতায় রাজনৈতিক দল গঠনের অনুমতি দেয়া হয়। ১৯৭৯ সালের ২৫ মে একটি কনভেনশনের মাধ্যমে আবারও প্রকাশ্য রাজনীতিতে শিকড় গেড়ে বসে জামায়াত। নতুন নাম দেয়া হয় জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশ।

২০১৩ সালে জামায়াতের শীর্ষ ৬ নেতাকে বিভিন্ন দ- প্রদান করা হয়। এর মধ্যে জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মুহাম্মদ মুজাহিদ, সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মোহাম্মদ কামারুজ্জামান, নায়েবে আমির দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী ও সাবেক রোকন বাচ্চু রাজাকার হিসেবে পরিচিত আবুল কালাম আযাদকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদ- প্রদান করা হয়। একই সঙ্গে সাবেক আমির গোলাম আযমকে ৯০ বছরে কারাদ- প্রদান ও আব্দুল কাদের মোল্লাকে যাবজ্জীবন কারাদ- প্রদান করা হয়। একই সঙ্গে রায়ের পর্যবেক্ষণে জামায়াতকে ‘অপরাধী সংগঠন’ (ক্রিমিনাল অর্গানাইজেশন) হিসেবে আখ্যায়িত করেছে। জামায়াতের ৬ নেতার বিরুদ্ধে ঘোষিত রায়ের ৫টিতেই মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী রাজনৈতিক দল জামায়াতে ইসলামীকে পাকিস্তানী সেনাদের ‘সহযোগী বাহিনী’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়। এ সব রায়ের পর্যবেক্ষণে ট্রাইব্যুনাল মুক্তিযুদ্ধকালীন নৃশংসতার জন্য পাকিস্তানী সেনাদের পাশাপাশি জামায়াতকেও দায়ী করেছেন।

প্রসিকিউশনের ভাষ্য ॥ তদন্তকারীদের অন্যতম প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ বলেছেন, তদন্ত শেষ হয়েছে। এ সংগঠনের বিরুদ্ধে যেসব অপরাধের প্রমাণ পাওয়া গেছে, তাতে বিভিন্ন ধরনের সাজা হতে পারে। সংগঠনটি নিষিদ্ধ হতে পারে, তাদের সব সম্পত্তি বাজেয়াফত করা হতে পারে। নির্বাচন কমিশনের শর্ত পূরণ না করায় ইতোমধ্যে রাজনৈতিক দল হিসেবে জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন বাতিল করেছে উচ্চ আদালত। তবে একাত্তরে ভূমিকার জন্য দলটিকে পুরোপুরি নিষিদ্ধ ঘোষণার জন্যও জোরালো দাবি রয়েছে। স্বাধীন বাংলাদেশে রাজনৈতিক দল হিসেবে কর্মকা- চালালেও একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করার জন্য কখনই ক্ষমা চায়নি জামায়াত, বরং দলটির শীর্ষ নেতারা স্বাধীনতার পরও বলেছিলেন, একাত্তরে তাদের ভূমিকা সঠিক ছিল।

ট্রাইব্যুনালের পর্যবেক্ষণ ॥ আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের কয়েকটি রায়ের পর্যবেক্ষণে জামায়াতে ইসলামীকে ‘ক্রিমিনাল দল’ আখ্যায়িত করে বিচারপতি বলেন, দেশের কোন সংস্থার শীর্ষ পদে স্বাধীনতাবিরোধীদের থাকা উচিত নয়। ট্রাইব্যুনালের আগের রায়গুলোতেও জামায়াতের স্বাধীনতাবিরোধী ভূমিকা ও মানবতাবিরোধী অপরাধে দলটির সরাসরি সংশ্লিষ্টতার বিষয়গুলো উঠে আসে। যুদ্ধাপরাধীদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে গণজাগরণ মঞ্চের আন্দোলন থেকে ‘যুদ্ধাপরাধী’ দল হিসেবে জামায়াত নিষিদ্ধের দাবি উঠে। জামায়াত নেতা আব্দুল কাদের মোল্লার রায়ের পর গড়ে ওঠা এ আন্দোলনের পর আইন সংশোধন করে দলের বিচারের বিধানও যোগ করা হয়। আগের আইনে শুধু যুদ্ধাপরাধী ব্যক্তির বিচারের সুযোগ ছিল।
১৯৪৭ সালে পাকিস্তানের স্বাধীনতার সময় গোলাম আযমের ‘গুরু’ আবুল আলা মওদুদী বিরোধিতা করেছিলেন। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সময় সেই ধরনের ভূমিকাই ছিল গোলাম আযমের। জামায়াত দুই সময়েই সাধারণ মানুষের মন বুঝতে ব্যর্থ হয়েছিল মন্তব্য করে ট্রাইব্যুনাল দলটির দূরদৃষ্টির অভাবের পেছনে উগ্র মৌলবাদী চেতনাকেই চিহ্নিত করেছে। ‘স্বাধীনতার ৪২ বছর পরও স্বাধীনতাবিরোধী কিছু মানুষ জামায়াতের হাল ধরে আছেন। যার ফলে জামায়াতের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা নতুন প্রজন্ম স্বাধীনতাবিরোধী চেতনা ও সাম্প্রদায়িক অনুভূতির মানসিকতায় বেড়ে উঠছে, যা দেশের জন্য বড় ধরনের উদ্বেগের বিষয়।’

ভুল স্বীকার করেনি ॥ তদন্ত সংস্থা সূত্রে জানা যায়, ১৯৫১ সালের আহম্মদিয়া সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে দাঙ্গা থেকে শুরু করে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ এবং মুক্তিযুদ্ধপরবর্তী জামায়াতের রাজনৈতিক, সামাজিক কর্মকা-ের দালিলিক তথ্যউপাত্ত রয়েছে তদন্ত সংস্থার প্রতিবেদনে। গুরুত্ব দেয়া হয়েছে জামায়াতের প্রতিষ্ঠাতা আবুল আলা মওদুদীর দর্শন ও আদর্শকে। তদন্ত সংস্থা অন্যান্য তথ্যউপাত্তের সঙ্গে যে সমস্ত বই রেখেছেন তার মধ্যে রয়েছেÑ ‘জামায়াতের ইতিহাস’, ‘একটি জীবন একটি ইতিহাস’, ‘জামায়াত ফেৎনা স্বরূপ’ মাওলানা মওদুদী, মাওলানা নিজামীর বই ‘আলবদর থেকে মন্ত্রী’। এ ছাড়া পাকিস্তানের জামায়াতে ইসলামীর বইও রয়েছে। পত্রপত্রিকার মধ্যে রাখা হয়েছে, মুক্তিযুদ্ধের সময় যে সমস্ত পত্রিকায় নিউজ ছাপা হয়েছিল সেগুলোর মধ্যে দৈনিক আজাদ, দৈনিক ইত্তেফাক, দৈনিক পূর্বদেশ, দৈনিক পয়গাম, দৈনিক পাকিস্তান, দৈনিক অবজারভারসহ অন্যান্য ডকুমেন্টস।

তদন্ত সংস্থার ওই চূড়ান্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, একাত্তরে জামায়াতে ইসলামী সরাসরি মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করে। কেবল বিরোধিতা করেই তারা ঠিক থাকেনি, পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর সহায়তায় জামায়াতের নেতা ও কর্মীদের রাজাকার, আলবদর, আলশামস নিয়োগ করা হয়। মুক্তিযুদ্ধের সময় এ সমস্ত সহযোগী বাহিনী দেশব্যাপী হত্যা, গণহত্যা, ধর্ষণ, লুটপাট, অগ্নিসংযোগ করে। তাদের অত্যাচারে এক কোটি শরণার্থী পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে আশ্রয় নেয়। ইতোমধ্যে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে নয়টি মামলায় দশ যুদ্ধাপরাধীর বিচার হয়েছে। আরও শীর্ষ যুদ্ধাপরাধীর বিচার চলছে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, মুক্তিযুদ্ধের সময় অপরাধের ভুল স্বীকার করেনি জামায়াত। বরং স্বাধীনতার পর ১৯৮০ সালের ৭ ডিসেম্বর এবং ১৯৮১ সালের ২৯ মার্চ দ্বিতীয় সংবাদ সম্মেলনে তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত আমির আব্বাস আলী খান বলেছিলেন, একাত্তরে তাদের ভূমিকা সঠিক ছিল। শুধু তাই নয়, সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছিলেন, একাত্তরে বাংলাদেশের কনসেপ্ট ছিল না। ওই সময় পকিস্তানের নাগরিক গোলাম আযমও বলেছিলেন ‘বাংলাদেশ মাটির নাম, আদর্শের নাম নয়।’

প্রথম আত্মপ্রকাশ ॥ ১৯৪১ সালের এপ্রিল থেকে অনানুষ্ঠানিকভাবে মাওলানা মওদুদী প্রতিষ্ঠিত জামায়াতে ইসলামের তৎপরতা শুরু ভারতীয় উপমহাদেশে। একই বছরের ২৬ আগস্ট ৭৫ প্রতিনিধি নিয়ে লাহোরে সম্মেলনের কাজ শুরু হয়। ওই দিন সম্মেলন থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে জামায়াতে ইসলামী সংগঠন হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। এর আগে ১৯৩৮ সালে জামায়াত প্রতিষ্ঠার প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে চার কর্মী নিয়ে ‘দারুল ইসলাম’ নামক সংগঠন যাত্রা শুরু করে। পরবর্তীতে ভারত-পাকিস্তান বিভক্তির সময় পাকিস্তান জামায়াতে ইসলামী ও ভারত জামায়াতে ইসলামী নামে বিভক্ত হয় জামায়াত। পাকিস্তান সরকারের সঙ্গে বিভিন্ন ইস্যুতে দূরত্ব সৃষ্টি হয় জামায়াতের। ‘কাদিয়ানী সমস্যা’ নামক একটি বিতর্কিত বই লিখে ১৯৫৩ সালের ২৮ মার্চ গ্রেফতার হন জামায়াতের প্রতিষ্ঠাতা মওদুদী। সামরিক আদালতে তাঁর ফাঁসি হয়। পরে সৌদি বাদশাহর হস্তক্ষেপে ১৯৫৫ সালের ২৯ এপ্রিল মুক্তি দেয়া হয় তাঁকে।
সংগ্রহঃ জনকন্ঠ।