যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দ্রুত করতে ভ্যাকেশন বেঞ্চ চালুর আবেদন,স্মারকলিপি দেবে গণজাগরণ মঞ্চ
এইদেশ ডেস্ক, মঙ্গলবার, জুলাই ৩০, ২০১৩


আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে মানবতাবিরোধী অপরাধীদের বিচার দ্রুত নিষ্পত্তির লক্ষ্যে আপীল বিভাগে ভ্যাকেশন বেঞ্চ চালুর দাবিতে আজ প্রধান বিচারপতি বরাবর স্মারকলিপি দেবে গণজাগরণ মঞ্চ। এর অনুলিপি প্রদান করা হবে আইনমন্ত্রী এবং এ্যাটর্নি জেনারেল বরাবর। মঙ্গলবার প্রজন্ম চত্বরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার।

ইমরান বলেন, আমরা ইতোমধ্যেই জেনেছি যে আগামী ১ আগস্ট আদালতের কার্যক্রম শেষে দেড় মাসের দীর্ঘ ছুটিতে যাচ্ছেন সুপীমকোর্টের বিচারকগণ। প্রথা অনুযায়ী বিচারকগণ দীর্ঘসময় ধরে এ ছুটি ভোগ করে আসছেন। এরপরও আমরা দেখেছি, বিভিন্ন সময়ে রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ বিবেচনায় অবকাশের সময়ও আপীল/হাইকোর্ট বিভাগের কার্যক্রম চলে এসেছে। তাই আমাদের দাবি মানবতাবিরোধী অপরাধীদের বিচার দ্রুত নিষ্পত্তির লক্ষ্যে আপীল বিভাগে ভ্যাকেশন বেঞ্চ চালু করা হোক। এ ছাড়া গণদাবির প্রেক্ষিতে গণজাগরণ মঞ্চের চলমান আলোকচিত্র প্রদর্শনী ‘ইতিহাসের পোট্রেট’ আগামী তিন আগস্ট পর্যন্ত বর্ধিত করা হলো।

আপনারা জানেন, গত ২৬ জুলাই থেকে মুক্তিযুদ্ধের দুর্লভ আলোকচিত্রগুলো নিয়ে গণজাগরণ মঞ্চের উদ্যোগে শুরু হয়েছে আলোকচিত্র প্রদর্শনী ‘ইতিহাসের পোট্রেট।’ এ প্রদর্শনীটি তারুণ্যের মাঝে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে। বিশেষ করে পরিবারের শিশুদের নিয়ে যে বাবা-মায়েরা আসছেন, তাঁরা এ প্রদর্শনীটি সম্পর্কে উৎসাহব্যঞ্জক মন্তব্য দিয়েছেন। তবে ইতিহাসবিদ এবং প্রত্যক্ষ মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারীদের অনেকেই জানিয়েছেন, আরও দুর্লভ কিছু আলোকচিত্র রয়েছে, যা এখানে প্রদর্শনী করা যায়নি। তাঁদের আগ্রহের প্রেক্ষিতেই গণজাগরণ মঞ্চের একটি গবেষণা সেল ইতোমধ্যে বিভিন্ন জায়গা থেকে মুক্তিযুদ্ধের দুর্লভ আলোকচিত্র সংগ্রহ শুরু করেছে।

গণজাগরণ মঞ্চ মুক্তিযুদ্ধের দুর্লভ আলোকচিত্র, চলচ্চিত্র, চিত্রকর্ম, গান, কবিতা, সংবাদপত্র ও গ্রন্থসহ নানা দালিলিক স্মারকচিহ্নগুলো নিয়ে আর্কাইভ তৈরির পরিকল্পনা করেছে। এই আর্কাইভ হবে একটি ডিজিটাল আর্কাইভ। এ ছাড়াও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে সারাবাংলাদেশে ছড়িয়ে দেবার লক্ষ্যে ঈদের পর থেকে সারাদেশে এ আলোকচিত্র প্রদর্শনীর উদ্যোগ নেয়া হবে। নতুন প্রজন্মের কাছে পৌঁছে দেয়া হবে মুক্তিযুদ্ধের আলোকোজ্জ্বল ইতিহাস এবং জামায়াত-শিবিরের ভয়াবহ নৃশংসতার ছবিগুলো। মুক্তিযুদ্ধ এবং মুক্তিযুদ্ধের পর জামায়াত-শিবিরের সন্ত্রাসীরা যে হিংস্রতা চালিয়েছে তারও নজির তুলে ধরা হবে সারাদেশে আয়োজিত আলোকচিত্রগুলোতে। গণজাগরণ মঞ্চের গবেষণা সেলের এ উদ্যোগকে সফল করতে দেশ এবং দেশের বাইরের সকলের কাছে বিনীত অনুরোধ- আপনাদের কাছে যদি মুক্তিযুদ্ধের কোন আলোকচিত্র, চলচ্চিত্র, চিত্রকর্ম, গ্রন্থ ও সংবাদপত্র কিংবা জামায়াত-শিবিরের নৃশংসতার ছবি থেকে থাকে, তা আমাদের কাছে পাঠিয়ে দিন। যোগাযোগের মোবাইল নাম্বার- ০১৭৮১৬২৮১১১।