আইভি রহমানের কবিতা ভাবনা ও ৪টি কবিতা
আ ই ভি র হ মা ন, মঙ্গলবার, অক্টোবর ১৬, ২০১২


আইভি রহমান। পেশায় আইনজীবী। অস্ট্রেলিয়ার রাজধানী ক্যানবেরাতে বসবাস। সেই ছোট্ট বেলা থেকেই লেখালিখি এবং সাংস্কৃতিক জগতের সাথে মিলে মিশে থাকা। দেশের নামে অসংখ্য সমাজ সেবা মুলক কাজের সাথে জড়িত থাকার প্রবণতা সেই ছোট্ট বেলায় গড়ে উঠেছিল বাবার প্রেরণায় আজও তেমনি বয়ে যান আবিরাম উত্তাল স্রোতে।

কবিতা ভাবনা

কবিতা এবং আমি, গভীর ভালবাসায় জড়িয়ে থাকি একে অপরের হয়ে। মানুষ দুঃখ দিলেও আশ্রয় পাই কবিতার সবুজ মেঝেতে। যে কখনও ফেরাতে জানেনা। আমার কান্নায়, হাঁসিতে, আমার স্মৃতিতে তৃষিত চাতক হয়ে কবিতার বুকে খুঁজে ফিরি স্নিগ্ধতার জোনাকি ছায়ার অপরূপ আলো। কবিতা ভালবাসি বলেই অকপটে নিজেকে দেখি নিজস্ব আয়নায়। ঠিক যেমনটি আমি তেমনি দেখায় সে। কোন প্রলেপ নেই তাতে, নেই মেকি ছলনা। তাই তার বুকেই লিখে রেখে যেতে চাই নিজের নিজস্বতাকে। যাকে শুধু আমি আর কবিতা ছাড়া কেউ চেনে না, জানে না, দেখে না, বুঝেনা। আমার ঘুম ভাঙ্গা রাতে, খয়েরী বিকেলে, উদাস ফিকে গোধুলি আর তমসার কালোতে পথ দেখি কবিতার আলোতে।




দুই দুয়ারী

আমার নিজস্ব হৃদয় আজ বেপরোয়া, উদ্ধত, বেয়াড়া-
অবাক বিস্ময় বিস্মিত করে বার বার
যে অধীন ছিল আমার ,আমারই, শোনে না কোন কথাই আর!
চোখের ইশারা বুঝে চলতে শেখা ভুলে
ভ্রুকুটি হানে আমায় কোন নতুন দুয়ার খুলে!
অলিন্দে অলিন্দে আন্দোলনের তীব্র জটিল ভাষা
জানিয়ে দিল হৃদয় বনে মৌ জমেছে গভীর ভালবাসা।
ভালবাসাই বড় হোল ভালবাসাই সব
আপন হৃদয় বুঝলইনা আপন অনুভব!!


জ্বালা

বেয়াড়া বেপরোয়া ভুলগুলো ভীষণ কষ্ট দিচ্ছে আজকাল
প্রায় প্রায় খামছে ধরছে পাঁজরের ভেতরের নরম হৃৎপিণ্ডটাকে,
নিঃশ্বাসও মাঝে মাঝেই থেমে থেমে যায়
প্রানশক্তি নিয়ে আমি দ্রুত উঠে দাঁড়াই,
এখনো অনেক কাজ বাকি রয়ে গেছে
অনেক কিচ্ছু বলার ছিল, বলার আছে।
অনেক গুলো স্বপ্ন বার বার জানান দিচ্ছে তাদের সময় সীমার কথা,
আমি অস্থির অতৃপ্তিতে সামনের দিকে ছুটি প্রবলভাবে
বিকেল হলদে হবার আগেই পৌছাতে হবে সেই লক্ষ্যে।


অচেনা অন্ধকার

নিজের ভেতর নিজেকে আবিষ্কার
পূর্ণাঙ্গ এবং সম্পূর্ণ ভাবে যেদিন শেষ হোল- জানলাম
আমার কবিতার সকল পংতিমালায়
জীবনের সকল জটিল এবং সরল খেলায়
আমাকে ছাড়িয়েও উজ্জ্বল একটি নাম।
জীবন নদিতে বয়ে যায় অবিরাম।
জানা নেই সে কার, আমিই বা কার!
তবুও পথ চলা, হেঁটে যাওয়া তারই দিকে বার বার।
কুয়াশায় ঢাকে পথ, থমকে যায় রথ
তবুও তারই সেই নাম যেন অবিনশ্বর
আমার শুন্যতার পূর্ণতায় চির ভাস্বর।


তৃষ্ণায় তৃষ্ণা


কাল রাতের স্বপ্ন দোলাচলে তোমার গাঢ় উষ্ণ নিশ্বাস
আমার গ্রীবা,
অধর,
পিঠ,
স্তন,
নাভিমূলে
ঝড় তুলেছিল-
কাল রাতের স্বপ্ন রথে মিলনের মরদ্যান
অজস্র লতা,
পাতা,
ফুল

শষ্যের সম্ভারে
প্রাণ ঢেলেছিল।
কাল রাতের স্বপ্ন বাগান
আল-জিহ্বা চুম্বনে
তৃষিত অধরের ফাঁকে তৃষ্ণা ঢেলেছিল।
ঘাম ও কামের যুথবদ্ধতায়
আবদ্ধ করেছিলাম জীবনের ভিতর আমাদের জীবন
রতিক্লান্ত ঝড়ে ভেসে গিয়েছিল যুগল ক্রন্দন।