এমে সেজেরের কবিতা
এমে সেজের, শনিবার, সেপ্টেম্বর ২২, ২০১২


খোয়া যাওয়া শরীর
..................................................
এমে ফেরনান্দ্ দাভিদ সেজের
ভাষাবদল : ইসফ়ানদিয়র আরিওন
.....................................................


যে আমি ক্রাকাতোয়া১

যে আমি মওশুমি হাওয়া থেকে উত্তম

যে আমি খোলা বক্ষের ছাতি

যে আমি লাইলাপ্ স্২

যে আমি চার পেয়ে জন্তুদের থেকেও উত্তমরূপে ভ্যা ভ্যা করি

যে আমি রয়ে যাই অগোচরে

যে আমি জামবেজি৩ অথবা উদ্ বেলিত-উত্তেজিত অথবা নরখাদক

সে আমিই তো হতে চাই অনেক অনেক নতশির আর নীচ

সব সময়ই আমি ভয়ানক অথচ আমার মাথা ঝিমঝিম করে না, আমার নামটুকুও নেই

যতক্ষণ না ভালো করে খোলা মাটির জীবন্ত সুজির গহীনে

অধঃপতনের শেষ বিন্দুতে পৌঁছাচ্ছি ।

যদি বাতাবরণের বদলে বাহিরে এক চমৎকার সন্ধ্যালোক হত যেখানে কোনও ধূলিকণা থাকত না

প্রতিটি শীকর যেন সেখানে এক সূর্য বোনে

সেই নামে যে নামে সবাইকে ডাকা যায়

যদি নাম হত বিবাদের চমৎকার সমাবেশ

যাতে করে কেউ আর জানত না কে চলে যাচ্ছে

অথবা একটি নক্ষত্রের অথবা একটি আশার পাশ দিয়ে

অথবা একটি কৃষ্ণচূড়া গাছের পাপড়ির পাশ দিয়ে

অথবা পানির তলে কোনও পিছুহটার পাশ দিয়ে

আম জেলি মাছের জ্বলন্ত আলোর পাশ দিয়ে ছুট ।

অতঃপর, ভাবি আমি– আমার জীবন সমস্ত সত্ত্বাকে যদি ভাসিয়ে নিয়ে যেত

ভালোই তো হত যদি আমি অনুভব করতাম এটা আমাকে স্পর্শ করছে অথবা পীড়া দিচ্ছে

শুয়ে শুয়ে যদি আমি দেখতাম অবশেষে আমার কাছে আসছে স্বাধীন খুশবু

রহমতের হাতের মতো মনে হয়

যদি আমার মধ্যেই খুঁজত তাদের পথ

সেখানে দীঘল চুল দোলাতে

এত অনতিক্রম্য সে পথ যে আমি পৌঁছুতে না পারি ।

সরে যাওয়া বস্তুগুলো আপনার মধ্যেই ঘর বানায়

আমার বিশ্রামের জন্য সে ঘর তরঙ্গে ভাসে

আমার ভয়ঙ্কর বর্ম যেন নোঙরের মতো মূলে প্রোথিত

যে একটি জায়গা খুঁজছে যেখানে সে ধরে বসবে

বস্তু যা আমি প্রমাণ করি, প্রমাণ করি

যে আমি রাস্তার কুলি সে আমি তো মূলেই কুলি

আর আমি মাপি আর আমি জোরাজুরি করি আর আমি গোপন করি

আমি ওমফালি৪ ।

আহ! কে আমাকে হার্পুনের দিকে টানে

আমি তো অনেক দুর্বল

আমি বাজাই হাঁ আমি অনেক অনেক আগের জিনিশে বাঁশি বাজাই

আশীবিষের মতো অথবা গুহাবাসী কোনও বস্তুর মতো

আমি স্বর্ণ হাওয়া শান্তি সেই

এবং আমার নড়বড়ে আর ঝকঝকে মুখোশের বিপরীতে

এবং আমার ক্ষয়ে যাওয়া মুখোশের বিপরীতে

তুমি রাখ তোমার লুণ্ঠিত হাসির ঠাণ্ডা মুখ ।

আমি কেবলই শুনি দুর্ভাগ্যের বায়ু

স্মরণাতীত এই আকাশের

গভীর থেকে উঠে আসা কাফরি কাফরি কাফরি

আজকের থেকে আরেকটু কম জোরে

কিন্তু তবুও অনেক জোরে

এবং সারমেয়ের এই পাগলা গর্জন আর ঘোড়ার আর্তচিৎকার

যা আমাদের আজকের এই বাদামি পশ্চাদনুসরণের উপর চাপ দেয়

কিন্তু আমি বাতাসে পাক দিই

আমি এক ভয়ানক আত্মচিৎকার তুলব

যা আমি সমস্ত আকাশে ছড়িয়ে দিব

এবং আমার ছিন্নভিন্ন শাখা-প্রশাখা দিয়ে

এবং আমার আহত ও গম্ভীর তিরের একরোখা ফোয়ারা দিয়ে

আমি আদেশ করব দ্বীপপুঞ্জকে সে যেন থাকে ।

*************************

১/ জাভা আর সুমাত্রার মধ্যিখানে আগ্নেয় পর্বতসঙ্কুল দ্বীপপুঞ্জ

২/ এলেনিক পুরাণে কথিত সারমেয় অথবা তার গতিপ্রকাশক বাযুঝড়

৩/ আফরিকার চতুর্থ দীর্ঘতর নদী

৪/ এলেনিক পুরাণে কথিত নদীর দেবী