বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধের বিচার এবং আসন্ন নির্বাচন প্রসঙ্গে স্টকহোমে আলোচনা সভা
শেখ তাসলিমা মুন , শনিবার, নভেম্বর ২৩, ২০১৩


গত ১৭ নভেম্বর ২০১৩, দুপুর ১ ঘটিকায় স্টকহোমের ফ্লেমিংসবারীস্থ এক মিলনায়তনে সুইডেন প্রবাসী প্রগতিশীল নাগরিক সমাজ এর উদ্যোগে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। স্থানীয় সুইডিশ লিবারেল পার্টির বিশিষ্ট রাজনৈতিক ব্যাক্তিত্ব, বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব আখতার জামান এ সভায় অংশ নিয়ে সভাপতিত্ব করেন এবং সুইডেন আওয়ামী লীগ-এর সহ-সভাপতি, সাবেক ঢামেকসু ভিপি ড: ফরহাদ আলী খান সভা পরিচালনা করেন এবং বক্তব্য রাখেন। এ ছাড়াও এ সভায় অংশ নিয়ে বক্তব্য রাখেন শেখ তাসলিমা মুন, মাসুম বারী, রিপন আহমেদ, আল-আমিন বাবু, আরিফ মাহবুব, মৃদুল ভট্টাচার্য, বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা দলিলুর রহমান মানিক, এম এ হান্নান, যুবলীগ নেতা জোবাইদুল হক সবুজ, খালেদ মো: আলী, আব্দুর রাজ্জাক ও তানজিল তানজু। ঢাকা থেকে এ সভায় গনজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডঃ ইমরান এইচ সরকার টেলিফোনে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন।

গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডঃ ইমরান এইচ সরকার যুদ্ধাপরাধের বিচারে দেশের তরুণ সম্প্রদায়ের বলিষ্ঠ ভুমিকার কথা উল্লেখ করে ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ থেকে শুরু করে প্রজন্মের ভুমিকার বর্ণনা করেন। এ সময় তিনি জাগরণ মঞ্চের অব্যাহত কাজের প্রত্যয় দৃঢ়ভাবে ব্যক্ত করেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় এক নতুন বাংলাদেশের স্বপ্নকে তরুণ এবং সকল প্রজন্মের ভেতর প্রজ্বলিত করার বিষয়ে তাঁর অব্যাহত কাজের বর্ণনা করে সকল প্রবাসীদের ভুমিকার প্রশংসা করে তাঁর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশ গড়া এবং সকল যুদ্ধাপরাধীর বিচার এবং রায় কার্যকর করার বিষয়ে কাজ করার জন্য সকল প্রবাসী সংঘের প্রতি আহ্বান জানান। এসময় সুইডেন সিভিল সোসাইটির অনেকে তাঁর সাথে আলাপ করেন এবং তাঁদের একাত্মতা ব্যক্ত করেন।

আসন্ন নির্বাচনে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিকে একত্রিত হয়ে মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ গড়ায় প্রবাসীদের ভুমিকা বিষয়ে সকলে তাঁদের বক্তব্যে বিশেষ ভাবে আলোকপাত করেন। বাংলাদেশে যাতে আর মৌলবাদ মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে না পারে, ৭১ এর পরাজিত অপশক্তি যাতে রাজনীতিতে ভুমিকা রাখতে না পারে সে বিষয়ে বিশেষ আলোচনা করা হয়। আসন্ন নির্বাচনে তরুণ সম্প্রদায়কে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ করে দেশকে জামাত, আল বদর এবং যুদ্ধাপরাধীদের কবল থেকে মুক্ত করার প্রবাসী উদ্যোগ বিশেষ ভাবে আলোচিত হয়।

যুদ্ধাপরাধের বিচার কার্যক্রমকে পরিচালিত করা এবং ট্রাইবুনালের কার্যক্রম অব্যাহত রাখার কাজে আসন্ন নির্বাচনে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ এবং জয়ী করতে প্রবাসীদের ভুমিকা বিষয়ে সুইডেনের সকল স্তরের দেশপ্রেমিক ভাইবোনের প্রতি আহ্বান জানানো হয়। এছাড়া সুইডেনে বসবাসরত প্রবীণ মুক্তিযোদ্ধারা সেখানে নতুন প্রজন্মের সাথে মিলিত হয়ে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাসের গুরত্ব এবং তাকে পুরুদ্ধারে নতুন প্রজন্মকে সার্বিক সহায়তার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। সবশেষে সমবেত জাতীয় সংগীতের সাথে অত্যন্ত সফলভাবে অনুষ্ঠানটির সমাপ্তি ঘোষণা করেন অনুষ্ঠানের সভাপতি জনাব এম এ আখতার।

অনুষ্ঠানের একটি স্মারকলিপি গন প্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্টকহোমস্থ কার্যালয়ে মহামান্য রাষ্ট্রদূতের কাছে প্রদান করা হয়।

স্টকহোম, সুইডেন