লাশ পিপাসুর উদ্দেশে…
ইসমাইল হোসেন সাদী , মঙ্গলবার, মার্চ ১৯, ২০১৩


খালেদা জিয়া গতকাল মানিকগঞ্জে বলেছেন, ‘আল্লাহর হুকুম ছাড়া যেমন গাছের পাতা নড়ে না, তেমনি প্রশাসনের কোনো কাজ প্রধানমন্ত্রীর হুকুম ছাড়া হয় না।’ (সূত্র: প্রথম আলো, পৃ. ১)

প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতার হাত কতটা লম্বা, সে সম্পর্কে তিনি এমন ভাষণ দিতেই পারেন। কারণ, যেহেতু তিনি দুইবার প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। কিন্তু আমি তাঁকে বিনীতভাবে জিজ্ঞেস করতে চাই, ২০০১-২০০৬ সাল পর্যন্ত সারা দেশে যে জঙ্গি তৎপরতা শুরু হয়েছিল, সেসব তাহলে আপনার নির্বাহী নির্দেশেই হয়েছিল? সারা দেশে গ্র্রেনেডের যে বাম্পার ফলন হয়েছিল, সেসবের উৎপদান-আমদানি আপনার হুকুমেই হয়েছিল? ওই সময় বাংলা ভাই, শায়খ আবদুর রহমানরা আপনার নির্দেশেই সমস্ত উত্তরবঙ্গসহ সারা দেশে হত্যাকাণ্ড চালিয়ে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছিল, সেটা আপনারই পরামর্শক্রমে? সারা দেশে একযোগে বোমা হামলা হয়েছিল, আপনারই নিখুঁত পরিকল্পনায়? শাহ এম এস কিবরিয়া, আহসানউল্লাহ মাস্টারের মতো জ্ঞানী সৎ নেতাকে হত্যা করেছিলেন নিজেরই নিষ্ঠুর ইচ্ছায়?

এরপর নিজের রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী শেখ হাসিনাকে দুনিয়া থেকে সরানোর পরিকল্পনা করেছিলেন দেশে সফলভাবে জঙ্গিবাদ কায়েম করার জন্য? যাতে আপনার খায়েশ না মিটলেও প্রাণ কেড়ে নিয়েছিলেন ২২ জন নেতা-কর্মীর!

আর ‘৯১-’৯৬ কৃষকের ন্যায্য অধিকার, সার চাওয়ার কারণে ১৮ জন কৃষককে পাখির মতো গুলি করে হত্যা করা হয়েছিল, তার সবই কি আপনার রক্তপিপাসু মনা ভরানোর জন্য? কানসাটে বিদ্যুতের দাবিতে আন্দোলনরত নিরীহ মানুষের ওপর গুলি চালিয়ে প্রাণ কেড়ে নেওয়া হয়েছিল আপনার এবং আপনার দলের চিরাচরিত প্রাণের ক্ষুধা মেটানোর জন্য? ফুলবাড়ী-হত্যাকাণ্ড ঘটেছিল আপনারই সুনিপুণ ইশারায়? অবশ্য এই হত্যাকাণ্ডগুলো আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন কি না, তা নিয়ে আজ পর্যন্ত কেউ প্রশ্ন তোলেনি। তবে আপনি কিন্তু একাত্তরের ঘাতকদের বিচার আন্তর্জাতিক কি না, তা প্রশ্ন তোলার স্পর্ধা দেখিয়েছেন।

আজ তবে পরিষ্কার হয়ে গেল, আপনি প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে দেশে যত হত্যাকাণ্ড আর অপকর্ম সংঘটিত হয়েছে, তার সব দায়ভার তাহলে আপনি নিজের ঘাড়ে তুলে নিচ্ছেন। খুব ভালো। এখন তাহলে আওয়মী লীগ বেগম জিয়ার এই কথার সূত্র ধরেই তাঁকে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে পারে…। এমনকি এতসব হত্যাকাণ্ডের জন্য সম্প্রতি আপনার দেওয়া ধারণা নিয়েই সরকার চাইলে আলাদা ট্রাইব্যুনাল গঠন করে আপনাকে আজই বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে পারে। তাহলে আমরা যাঁরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা লালন করি, তারা অবশ্যই সরকারকে সাধুবাদ জানাব এবং আপনার উদ্দেশে বলব, ম্যাডাম খালেদা আপনাকে ধন্যবাদ নতুন ট্রাইব্যুনাল গঠনের ধারণা দেওয়ার জন্য। Link